ছড়াঃ অশথগাছের ভূত - সুশান্ত কুমার ঘোষ


অশথগাছের ভূত

সুশান্ত কুমার ঘোষ


পালবাবুদের অশথগাছের তিনটে ভূতের ছা,
রাত নামলেই হাপুসহুপুস দাপিয়ে বেড়ায় গাঁ।
গাঁয়ের যত খোকাখুকু দুয়োরে খিল এঁটে,
সন্ধে হতেই সেঁদিয়ে থাকে মায়ের আঁচল সেঁটে।
সেদিন হঠাৎ মধ্যরাতে সান্তাবুড়োর বেশে,
সারা গাঁয়ের সব খোকাদের শোয়ার ঘরে এসে-
ঝোলায় রাখা ময়না-টিয়া ধরিয়ে দিয়ে হাতে,
সজল চোখে পিছিয়ে এসে দাঁড়াল তফাতে!
শুধায় খোকা, ‘সান্তা, তোমার চোখে কেন জল?’
সান্তাবুড়ো খোকার মতোই বলল অবিকল,
‘সত্যিটা আজ বলব তোমায়, সান্তা আমি নই
পাখপাখি আর ছায়া নিয়ে অশথগাছে রই।
সবার মনে ভয় জাগানো গল্প হয়ে থাকি,
বাতাস দিয়ে গান শুনিয়ে মন ভরিয়ে রাখি।
ঝালমুড়ি কেউ দেয় না খেতে শীতের র‍্যাপা নাই,
আমরা কেবল অশথপাতার কচি আদর পাই।
সেই আদরেই আমরা সুখী, তোমরাও পাও ভাগ
কিন্তু এখন তোমার ওপর হচ্ছে দারুণ রাগ!
কাঠুরেরা কাটবে ওটা কইছিল সেই কথা,
ওটা শুনেই ভীষণ রাগে গরম হল মাথা!
থাকবে কোথায় পাখপাখালি, বৃষ্টি দেবে কে?
কোথায় পাবে ছায়া-বাতাস আমায় তাড়ালে!’
হঠাৎ খোকা উঠল জেগে, দেখল মাঠের কাছে
আকাশছোঁয়া অশ্বত্থটাই একলা জেগে আছে!
সকাল হতেই বলল খোকন পাকিয়ে ডাগর চোখ,
‘আজ থেকে সব বৃক্ষছেদন বন্ধ করা হোক!’
_____

অলঙ্করণঃ সুজাতা চ্যাটার্জী

No comments:

Post a Comment