ছড়াঃ ফেরিওয়ালার গল্প - বনশ্রী মিত্র


ফেরিওয়ালার গল্প

বনশ্রী মিত্র


গ্রীষ্মকালের এই দুপুরে,
ঐ যে দূরে চেনা সুরে-
“ফেরিওয়ালা চললে কোথায়!
কী বেচছ বলবে আমায়?”
“জল দেবে গো, খুকুমণি?
জিরিয়ে নিতাম একটুখানি!
ঝোলায় আমার গল্প আছে,
রাজকুমারী হারিয়ে গেছে।
হন্যে হয়ে খুঁজছে সবাই,
মন্ত্রী, সেপাই, রাখাল কানাই।
রাজা দেবেন সোনার মোহর,
রাজকুমারীর দিলেই খবর!”
“ফেরিওয়ালা! তেষ্টা মেটাও,
শরবত আর বাতাসা খাও।
তারপর কী হল বলো!
রাজকুমারী কোথায় গেল?”
“এক রাক্ষস, দুষ্টু ভীষণ!
রাজকুমারীর করল হরণ।
রাখাল কানাই গান ধরল,
রাক্ষস বেশ জব্দ হল।
ঘুমপাড়ানি গানের রেশে,
রাক্ষস গেল ঘুমের দেশে।
রাজকুমারী ফিরল ঘরে,
কানাই কানাই সবাই করে।
রাজা বললেন, শোনো কানাই,
মোহর পাবেই। আর কী চাই?
কানাই খানিক মৃদু স্বরে,
নতমস্তক, করজোড়ে-
বলল খুলে মনের সাধ,
বিয়ে করতে চাই মহারাজ।
রাজকুমারীর মুখে হাসি,
রাজাও হলেন ভারি খুশি।
বাদ্যি, সানাই বাজল যত!
মণ্ডামিঠাই শত শত।”
“কী মিষ্টি গল্প তোমার,
ফেরিওয়ালা! এসো আবার।”
ফেরিওয়ালা হাসল এমন,
ঝোড়ো হাওয়ায় ছাইল ভুবন।
বৈশাখী ঝড় হঠাৎ করে,
কী আনন্দ চারিধারে!
“কোথায় গেলে, ফেরিওয়ালা?
ফেরিওয়ালা গেলে কোথা!”
ঝড়ের মধ্যে সে হারাল,
গল্প তার মন ভরাল।
“আবার এসো ফেরিওয়ালা,
এমন কোনও দুপুরবেলা।
যখন আমি একলা থাকি,
মন-কেমনকে দিতে ফাঁকি।”
_____

অলঙ্করণঃ সুজাতা চ্যাটার্জী

2 comments: