বইকথাঃ গোয়েন্দা কৌশিক / নারায়ণ দেবনাথঃ রাখী আঢ্য




গোয়েন্দা কৌশিক

লেখকঃ নারায়ণ দেবনাথ

প্রকাশকঃ দেব সাহিত্য কুটির
পৃষ্ঠাসংখ্যাঃ ২০৭
মূল্যঃ ২০০ (ভারতীয় মুদ্রা)

আলোচনাঃ রাখী আঢ্য


ছোটোবেলায় পড়া মাসিক শুকতারাগুলোর কথা ভাবলে প্রথমেই মনে পড়ে যায় প্রচ্ছদে গোয়েন্দা কৌশিকের অসামান্য ধারাবাহিক কমিকসগুলোর কথা। শ্রদ্ধেয় নারায়ণ দেবনাথের সৃষ্টি এই গোয়েন্দা কৌশিকের নয়টি কমিকস নিয়ে দেব সাহিত্য কুটির প্রকাশনীর বহু প্রতীক্ষিত ভিন্ন স্বাদের সংকলন ‘গোয়েন্দা কৌশিক’।
কৌশিক রায় ভারত সরকারের গোয়েন্দা দফতরের মার্শাল আর্ট ও বক্সিংয়ে সিদ্ধহস্ত এক ক্ষুরধার গুপ্তচর যার ডানহাতে রয়েছে বিশেষ অস্ত্রে সজ্জিত লৌহমুষ্টি। গোয়েন্দা কৌশিকের প্রথম প্রকাশ ১৩৮২ সালে (১৯৭৬) শুকতারায় ‘সর্পরাজের দ্বীপ’ - এই সাদাকালো কমিকসটির মাধ্যমে। যদিও সেটি এই বইটিতে নেই।
এই বইটির প্রথম গল্প স্বর্ণখনির অন্তরালে যা ১৩৯৯ সালে শুকতারা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল। উত্তর আমেরিকার এক স্বর্ণখনিতে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে বিনয় কাঞ্জিলাল নামে এক সুদক্ষ খনি ইঞ্জিনিয়ার নিখোঁজ হয়ে যায়। তারই অনুসন্ধানে আসে কৌশিক রায়।
এর পরের গল্প খুনে বিজ্ঞানী। একজন প্রতিভাধর বিজ্ঞানী এক অজানা দ্বীপে দীর্ঘকাল আত্মগোপন করে এক অত্যাধুনিক শহর গড়ে সেখানকার অধিবাসীদের নিজের তৈরি যন্ত্রমানবদের সাহায্যে ক্রীতদাস করে রেখেছেন। এই উন্মাদ ও বিকারগ্রস্থ বিজ্ঞানীর বিরুদ্ধেই কৌশিক রায়ের অভিযান।
কৌশিকের নয়া অভিযান-এ কৌশিক তার বন্ধুর সাথে বেড়াতে গিয়ে জলের নিচে ডুবসাঁতার দিয়ে পাথর-চাপা দেওয়া এক জুতো পরা লাশ দেখতে পায়। এরপর কী হয় সেটা জানতে গেলে গল্পটি পড়তে হবে।
এরপর ১৩৯০ সালে প্রকাশিত আরেক অনবদ্য গল্প অজানা দ্বীপের বিভীষিকা। একদিন হঠাৎ কৌশিককে গুয়েলভাডায় যেতে হয় যেখানে নাকি বিগত পাঁচ বছরে বাইরের কেউ চিনি কেনেনি। অথচ এটাই তাদের প্রধান রপ্তানির জিনিস। কৌশিক কীভাবে এই ধাঁধার উত্তর খুঁজে বের করে সেটাই পড়ার।
অপহৃত বিজ্ঞানীর সন্ধানে গল্পে বিদেশে বিজ্ঞান সম্মেলনে যোগ দিতে যাওয়ার পথে বিজ্ঞানী রণবীর সিংকে অন্য রাষ্ট্রের কিছু দুষ্কৃতী অপহরণ করে নিয়ে যায়। কৌশিক কীভাবে তাকে উদ্ধার করে সেটা নিয়ে এই কাহিনি।
ড্রাগনের থাবা আরেকটি অসাধারণ বহুপঠিত গল্প। গল্পটি ১৩৮৫ সালে শুকতারা পত্রিকাটিতে প্রচ্ছদ হিসাবে প্রকাশিত হয়েছিল। এক গোপন আন্তর্জাতিক অপরাধী সংস্থা এক অজ্ঞাত দ্বীপে ঘাঁটি করে শত্রুপক্ষের সঙ্গে হাত মিলিয়ে দেশের চরম ক্ষতি করছিল। এই সংস্থাকে সমূলে ধ্বংস করার জন্য গোয়েন্দা কৌশিক রায়ের অভিযান।
এরপর আছে ভয়ংকর অভিযান। এটি ১৩৯৪ সালের শুকতারার প্রচ্ছদ হয়েছিল। বন্ধু-রাষ্ট্র থেকে একজন সেনানায়ক সেনা প্রশিক্ষণের ব্যাপারে একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইক্রো-ফিল্ম নিয়ে আসার পথে খোয়া যায়। এই পটভূমিকার পরিপ্রেক্ষিতে এই কাহিনির উত্থাপন।
ভয়ংকরের মুখোমুখি গল্পটি অন্য রাষ্ট্রের কাছে পাচার হয়ে যাওয়া একটি গুরুত্বপূর্ণ দলিল উদ্ধারকে কেন্দ্র করে।
এই বইটির শেষ গল্প হল ভয়ের মুখোশ। লন্ডনের পটভূমিকায় রচিত কৌশিকের এই অভিযানটিও টানটান উত্তেজনায় ভরা।

দেব সাহিত্য কুটির থেকে প্রকাশিত এই বইটির সবচেয়ে বড়ো সমস্যা হল বইটিতে কোনও ভূমিকা, লেখক পরিচিতি অথবা চরিত্র পরিচিতি নেই। সূচিপত্রের অভাবও বেশ অনুভবযোগ্য। কমিকসগুলিও যেহেতু অরিজিনাল প্রচ্ছদ থেকেই নেওয়া, তাই কালানুক্রমিক না হবার জন্য ছাপার মানের তারতম্য বিশেষভাবে চোখে পড়ে।
২০৭ পাতার বইটির বিনিময় মূল্য ২০০ টাকা মাত্র। বাঁধাই ভালো, কিন্তু প্রচ্ছদ আরও আকর্ষক হতে পারত। পরবর্তী সংস্করণে এইগুলো ঠিক করে নিলেই বইটি আরও বেশি সর্বাঙ্গসুন্দর হয়ে উঠবে।
তবে এসবকে ছাপিয়ে যায় লেখকের অসামান্য গল্পের বুনোট। বাংলা সাহিত্যের চিত্রকাহিনিতে গোয়েন্দা কৌশিক এক কালজয়ী  চরিত্র এবং বিশেষভাবে সমাদৃত। রহস্য কাহিনির মূলভাবকে বজায় রেখে বিশ্বমানের অ্যাকশনধর্মী ছবি, সরল সাবলীল ভাষা এবং দেশবিদেশের নানাবিধ পটভূমিকায় লেখা প্রতিটি চিত্রকাহিনিই শুধু শিশুকিশোরদেরই নয়, বড়োদেরও মন ছুঁয়ে যাবে অনায়াসে। সাথে উপরি পাওনা পুরনো ছবির গন্ধ, ফেলে আসা ছেলেবেলা আর অবশ্যই আমাদের সকলের শ্রদ্ধেয় লেখক নারায়ণ দেবনাথ।
_____

No comments:

Post a Comment