ছড়াঃ দোস্তিঃ সুস্মিতা কুণ্ডু



কাকতাড়ুয়া মাঠের মাঝে একলা খাড়া রয়,
সারাবেলা মন যে খারাপ, কার কাছে সে কয়? 
খড়ের শরীর বাঁশের বাতায় দড়ি দিয়ে বাঁধা,
নেই যে কোনও সঙ্গী সাথী একাই হাসা কাঁদা।
ঝড়জল বা কাঠফাটা রোদ, শীত গ্রীষ্ম বর্ষা
ঢাকতে মাথা ফুটো টুপি, কালো কোটই ভরসা।
সোনার ফসল মাঠটি জুড়ে, কাক যে খেয়ে যায়
বীর পালোয়ান কাকতাড়ুয়া একলা পাহারায়!
কাকের দল যেই না আসে করতে ফসল নষ্ট,
“হুরর হুশশ তফাত যা! যদি ভালো চাস তো!”
একটি ছোটো কাকের ছানা, বুদ্ধি বেজায় তার
বললে এসে, “কাকতাড়ুয়া, বন্ধু হও আমার?
একা একা সারাটা দিন কাটাও কেমন করে?
সঙ্গী হলে আড্ডা দেব সারা বিকেল ধরে।
দেশবিদেশে ঘটছেটা কী, বলব সেসব গল্প
রাজী যদি হও তো বলো, শর্ত আছে অল্প।”
কাকতাড়ুয়া ভাবলে খানিক, কথাটি নয় মন্দ
তার বদলে চাইবেটা কী, জাগল মনে সন্দ।
কাকের ছানা বললে হেসে, “চাই না হিরেমানিক,
মুঠো ভরা ধান যদি দাও ভরবে পেটটা খানিক।”
কাকতাড়ুয়া হাঁফ ছেড়ে কয়, “রাজী আমি রাজী!
গল্প যদি শোনাও তবে দুই মুঠো দেব আজই!”
কাকের ছানাও রইল সুখে খেয়ে পেটটি পুরে,
বুড়ো কাকরা হিংসে করে পালায় উড়ে দূরে।
কাকতাড়ুয়ার সাথে হল দোস্তি কাকের ছানার,
মিটল শখ খড়ের খোকার অজানাকে জানার।

_____

অঙ্কনশিল্পীঃ সুকান্ত মণ্ডল

2 comments:

  1. বাঃ। অসম্ভব সুন্দর ছড়া।

    ReplyDelete
  2. চমৎকার একটি ছড়া। খুব ভালো লাগলো। মৃত্যুঞ্জয় হালদার।

    ReplyDelete