ছড়া: মজার স্কুল: শ্যামলশুভা ভঞ্জ পণ্ডিত


মজার স্কুল


শ্যামলশুভা ভঞ্জ পণ্ডিত



জঙ্গলে আজ স্কুল বসেছে অঙ্ক শেখায় শেয়াল,

হরিণদিদি বাংলা পড়ায় বাঘ শেখাবে খেয়াল।

বাঁদর ভায়া দুষ্টু ভারি পড়ায় যে নেই মন,

হাতি হল ক্লাসের সেরা পড়ছে সারাক্ষণ।

ইংরেজিটা পড়ায় হিপো চশমা চোখে এঁটে,

বকা দেবে হিপোমশাই এলে ক্লাসে লেটে।

লম্বা গলা জিরাফদাদা ক্লাসের মনিটর,

ভাল্লুকটা দিচ্ছে ফাঁকি, পড়ার নামে জ্বর।

সিংহমশাই বেজায় রাগী নামেই লাগে ভয়,

গণ্ডার আর জেব্রা দুজন পড়ায় মন্দ নয়।

মিষ্টি ছোটো খরগোশটা সবচেয়ে চটপটে,

সকালবেলা সবাই মিলে ইস্কুলেতে জোটে।

কাঠবেড়ালি টুকটুকিয়ে লাফিয়ে টিফিন খায়,

কোকিল বসে গাছের ডালে মিষ্টি সুরে গায়।

কানমলা খায় শালিক পাখি ঝগড়া করে রোজ,

দিনের বেলা ঘুমোয় প্যাঁচা কেউ করে না খোঁজ।

টুনটুনিটা বড্ড চালাক বেগুনগাছে বাড়ি,

লেট করে না কাক কখনো আসে তাড়াতাড়ি।

ইতিহাসটা হাঁস পড়াবে শুনবে মাছের দল,

পুকুর-জলে ভোরের হাওয়া নাচবে ছলাৎ ছল।

প্রজাপতির রঙিন পাখায় রাঙিয়ে নিয়ে তুলি,

আঁকছে ছবি মনের সুখে চন্দনা বুলবুলি।

হৈচৈ আর মজায় ভরা সে এক নতুন স্কুল,

মৌমাছিরা গান শোনাবে হাসবে বনের ফুল।

সুয্যিমামা জুটবে এসে সঙ্গে নরম আলো,

জঙ্গলেতে সকালবেলা লাগবে ভারি ভালো।

___


অঙ্কনশিল্পী: ছড়াকার


No comments:

Post a Comment